ফেসবুক মার্কেটিং
ফেসবুক মার্কেটিং

ফেসবুক মার্কেটিং কি? কেন কিভাবে- বিস্তারিত

ফেসবুক মার্কেটিং হল বর্তমান সময়ের ডিজিটাল মার্কেটিং এর সবচেয়ে গরুত্বপূর্ণ একটি পার্ট, এবং বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি মাধ্যম। কারণ তথ্য-প্রযুক্তির এই যুগে ফেসবুক হচ্ছে অধিক জনপ্রিয় একটি যোগাযোগ মাধ্যম।

২০১৯ সালের জরিপ অনুযায়ী ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা ২৪৫ থেকে বেড়ে ২৫০ কোটিতে পৌঁছায়। ইন্টারনেট নজরদারির ওয়েবসাইট ইন্টারনেট লাইভ স্ট্যাটসের তথ্য অনুযায়ী, এ বছরের জুলাই মাস পর্যন্ত হিসেবে ধরলে বর্তমানে বিশ্বে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৩৪২ কোটি।

অর্থাৎ বিশ্বে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের মধ্যে ৫২ শতাংশই প্রতি মাসে অন্তত একবার ফেসবুকে প্রবেশ করেন ৪২% ব্যবসায়ী মনে করেন, ফেসবুক তাদের বিজনেসের প্রধান হাতিয়ার।

বুঝতেই পারছেন, কোনো কোম্পানির ব্র্যান্ডিং কিংবা প্রমোশনের ক্ষেত্রে এই প্ল্যাটফর্মের গুরুত্ব কতখানি। ফেসবুক মার্কেটিং প্রক্রিয়া ব্যবহার করে যেকোনো ব্যবসায় (Business) ব্র্যান্ডিং বা  প্রচার করাটা অনেক সহজ হয়ে পড়েছে।

ফেসবুক মার্কেটিং কি জানতে হলে আপনাকে অবশ্যই মার্কেটিং এবং ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে জানতে হবে. মার্কেটিং এবং ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে জানতে এই লিংক এ ক্লিক করুন। এখানে মার্কেটিং এবং ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে বিস্তারিত দেয়া আছে, এটি পড়লে আপনি মার্কেটিং এবং ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে পুরোপুরি ধারণা পাবেন ইনশাআল্লাহ এবং Facebook Marketing সম্পর্কে নিজে নিজেই অনেকটা ধারণা পেয়ে যাবেন আসা করছি।

ফেসবুক মার্কেটিং এর এই পোস্ট-টি পড়লে যা যা জানতে পারবেন:

  1. ফেসবুক মার্কেটিং কি?
  2. ফেসবুক মার্কেটিং কত প্রকার ও কি কি ?
  3. ফেসবুক মার্কেটিং কেন করবেন?
  4. ফেসবুক মার্কেটিং কিভাবে করবো?
  5. ফেসবুক ফ্রি মার্কেটিং কি এবং কিভাবে করবো?
  6. ফেসবুক ফ্রি মার্কেটিং এর সুবিধা কি?
  7. ফেসবুক পেইড মার্কেটিং কি এবং কিভাবে করবেন?
  8. ফেসবুক পেইড মার্কেটিং এর সুবিধা কি।
  9. ফেসবুক মার্কেটিং টিপস।
  10. ফেসবুক মার্কেটিং করে আয়।

ইত্যাদি সবকিছু জানতে পারবেন ইনশাআল্লাহ।

ফেসবুক মার্কেটিং কি?

ফেসবুক ব্যবহার করে কোনো কোম্পানির প্রোডাক্ট বা সার্ভিসকে জনগণের নিকট পৌঁছে দেয়া অথবা কম্পানির ব্র্যান্ডিং ও ভিজিবিলিটি বৃদ্ধি করাই হচ্ছে ফেসবুক মার্কেটিং।

ফেসবুক মার্কেটিং কত প্রকার? ও কি কি ?

ফেসবুক মার্কেটিং প্রধানত ২ প্রকার। যথাঃ 

  1. ফেসবুক ফ্রি মার্কেটিং বা ফেসবুক অর্গানিক মার্কেটিং।
  2. ফেসবুক পেইড মার্কেটিং।

ফেসবুক মার্কেটিং কেন করবো?

শীর্ষস্থানীয় সামাজিক নেটওয়ার্কিং প্লাটফর্ম এর মধ্যে ফেসবুকের মোট ব্যবহারকারী ও ট্রাফিকের দিক থেকে Myspace এ দ্রুত লাভ করছে working সাইটগুলি। ফেইসবুক আপনার মার্কেটিং এর অন্যতম জনপ্রিয় ফিল্ড হয়ে উঠেছে।

সামাজিক মিডিয়া বিপণন এর সরঞ্জাম হিসাবে ফেসবুক ব্যবহার করে আপনার ব্যবসায়ের উপকারিতা–

ফেসবুক পেজ ইউজার এবং গ্রাহকের মধ্যে যোগাযোগ করার বা interactions তৈরী করতে সক্ষম হয়। ফেসবুক পেজ গ্রাহকদের সাথে সম্পর্ক বজায় রাখার জন্য একটি উদ্বোধন দেয়। 

আপনার ব্যবসায়ের মার্কেটিং এর বিষয়টি যখন আসে তখন গ্রাহকের মতামত অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কেননা, এটি আপনাকে গ্রাহকের প্রত্যাশা এবং তাদের কেনার আচরণ কী তা বুঝতে সহায়তা করে। ফলস্বরূপ এটি আপনাকে নিখুঁতভাবে ব্যবসায়ের বিপণনে সহায়তা করে। যখন পণ্যের প্রতিক্রিয়া করে সরাসরি ভোক্তাদের উদ্দেশ্যে পোস্ট দেয়া হয় ।

এটি আপনার ফেসবুক পেজ এ ফ্যান বাড়লে এটি আপনার কোম্পানির ওয়েবসাইটে আপনি যে ট্রাফিক পাবেন তা পরিচালিত করতে সাহায্য করবে এবং সার্চ রেজাল্ট এ ট্রাফিক বৃদ্ধি পাবে। ব্যবসায়কে আরও মনোযোগ আকর্ষণ করতে সহায়তা করে। এটি আপনার ব্যবসায়কে অনেক বেশি ভিজিবিলিটি দেওয়ারও সুযোগ করে দেয়। 

ফেসবুক এর মাধ্যমে আপনি আপনার ব্যবসায়ে ইউনিক উপায়ে অর্গানিক ভিজিটর নিয়ে আসতে পারেন। প্রতিবারই কোনো না কোনো ফেসবুক ব্যবহারকারী আপনার ফ্যান হওয়ার পরে নিউজ আইটেম এ যে পোস্ট করা হয় যা তার ফ্রেইন্ডলিস্টের সবাই দেখতে পারে, এটি আপনার ব্যবসায়িক ফেসবুক পেজ টি ভাইরাল হতে নতুন ফলোয়ার অর্জনের সাহায্য করে।

ফেসবুক মার্কেটিং কিভাবে করবো?

ফেসবুকের মাধ্যমে অনলাইন মার্কেটিং অনেক সহজ, প্রায় প্রত্যেকেই এই বিষয়টি জানেন বা অনেকের ধারণা এরকমই। আর হ্যাঁ সত্যিই Facebook Marketing অনেক সহজ যদি আপনি সঠিক স্কীলড প্রয়োগ করতে পারেন, তাহলে ফেসবুক মার্কেটিং খুবই সহজ। তবে এর জন্য  আপনার সঠিক স্কিলড থাকতে হবে, সঠিক নিয়ম জানতে হবে।

তাহলে চলুন ফেসবুক বিপণন এর সঠিক নিয়ম জেনে নেই:- ফেসবুক মার্কেটিং করার জন্য আপনাকে প্রথমে একটি প্রোডাক্ট, ব্যবসা বা ওয়েবসাইট থাকতে হবে।

আপনার পণ্য বা ওয়েবসাইট যা নিয়েই শুরু করেনা না কেন ঠিক ওই রকম  নামেই একটি ফেসবুক পেজ তৈরী করতে হবে। এবং সবকিছু সেটিং করে নিতে হবে।

এরপর পণ্য বা ব্যবসার ব্র্যান্ডিং একটি লোগো দিয়ে পেজ এর প্রোফাইল পিকচার দিয়ে পেজ টি আকর্ষণীয় করে নিতে হবে। যাতে কাস্টমাররা সহজেই আপনার ব্র্যান্ড বা ব্যাবসায় টি মনে রাখতে পারে বা পরিচিত হয়ে যায় আপনার ব্রান্ডের সাথে।

এরপর পেজের Description Box এ আপনার পণ্য বা ব্যবসায় সম্পর্কে গোছালো ভাবে বিস্তারিত কিছু লিখুন। 

এবং নতুন পেজ তৈরী করলে যেহেতু পেজ এ কোনো ফলোয়ার থাকবেনা তাই আপনার ফ্রেইন্ডলিস্টের বন্ধুদের ইনভাইট করুন এবং আপনার বন্ধুদের আপনার পেজ এ ফলোয়ার বাড়ানোর জন্য ইনভাইট করার জন্য বলুন। 

যখন আপনার পেজ এ ফলোয়ার এর সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে তখন আপনি আপনার ব্যবসায়ের বিভিন্ন পণ্য বা সার্ভিসেস গুলো আপনার পেজ এ শেয়ার করুন পোস্ট করে বা ভিডিও এর মাধ্যমে বা বিভিন্ন শেয়ার এর মাধ্যমে।

তাহলে আপনার ফলোয়ার রা আপনার নতুন নতুন পণ্য সম্পকে জানতে পারবে এবং তাদের শেয়ার করার মোট পোস্ট হলে তারা শেয়ার করে দিবে এতে আপনার ফলোয়ার বাড়বে এবং আপনার সার্ভিস সম্পর্কে বেশি মানুষ জানবে এবং আপনি লাভবান হবেন।

অনেকেই একটি ভুল করে থাকেন তারা সরাসরি পণ্য বা ওয়েবসাইট এর লিংক গ্রুপ এ বা পেজ এ পোস্ট করে থাকেন এবং এভাবেই প্রচার করেন। কিন্তু ফেসবুক এলগোরিদম বাহিরের যে কোনো লিংক সহজেই ধরে ফেলতে পারে। আপনি যদি বেশি পরিমানে লিংক পোস্ট করতে থাকেন তাহলে আপনাকে ফেসবুক থেকে কিছুদিনের জন্য ব্লক বা সাসপেন্ড করে দিতে পারে।

কারণ ফেসবুক চায়না আপনি টাকা না দিয়ে ফ্রি তে বাহিরের কোনো লিংক প্রমোশন করেন। কারণ ফেসবুক এর বুস্ট সিস্টেম আছে তারা চায় আপনি তাদের কে পেমেন্ট করে বুস্ট করে যেকোনো লিংক প্রমোশন কোরান।

সেজন্য আমরা ফেসবুক এ কোনো লিংক পোস্ট করবোনা। পোস্ট এ ছবি দিয়ে আর কিছু লিখে পোস্ট করবো এবং কমেন্ট লিংক দিয়ে পিন করে রাখবো তাহলে আর ফেসবুক আমাদের ব্লক কোরতে পারবেনা।

তাছাড়া আপনি যদি দ্রুত ফলোয়ার বাড়াতে চান তাহলে ফেসবুক অল্প কিছু টাকা ইনভেস্ট করে অল্প সময়ে অনেক বেশি ফলোয়ার বাড়াতে পারেন।

ফেসবুক ফ্রি মার্কেটিং কি?

ফেসবুক ফ্রি মার্কেটিং বা অর্গানিক মার্কেটিং হচ্ছে আপনি কোনো পোস্ট আপনার নিজের টাইমলাইন এ পোস্ট করবেন সেখানে অনেক লাইক পড়ে, কমেন্ট পড়ে, শেয়ার হয় কিন্তু সেখানে কি আপনাকে টাকা দিতে হয়? বা টাকা দিয়ে এড দিতে হয়? না হয়না। এটাই হলো অর্গানিক মার্কেটিং।

আপনি যখন আপনার টাইম লাইন, ফেসবুক পেজ বা ফেসবুক গ্রুপ এ আপনার কোম্পানির বা অন্য কোনো কোম্পানির প্রোডাক্ট সেল করা করা বা প্রচার করার উদ্দেশে পোস্ট করলেন, সেখান থেকে অনেক লাইক হলো, কমেন্ট হলো শেয়ার হলো কিন্তু আপনাকে কোনো টাকা খরচ করতে হলোনা এটাই হলো ফেসবুক ফ্রি মার্কেটিং বা অর্গানিক মার্কেটিং।

ফ্রি Facebook Marketing করার জন্য আপনি আপনার পণ্য বা ব্যবসায়ের নাম এ বিভিন্ন পেজ তৈরী করে, গ্রুপ এবং কমিউনিটির মাধ্যমে ফ্রি মার্কেটিং করতে পারেন। আপনার পেজ এ ফ্যান বেশি থাকলে আপনি খুব সহজেই ফ্রি ফেসবুক মার্কেটিং করতে পারবেন। ফ্রি Facebook Marketing ছোট কোম্পানির জন্য অনেক সুবিধাজনক।

ফেসবুক ফ্রি মার্কেটিং কিভাবে করবো?

ফেসবুক ফ্রি মার্কেটিং করার জন্য আপনাকে প্রথমে উপরের পোস্ট টি (ফেসবুক মার্কেটিং কিভাবে করবো) পড়ে ওই অনুসারে একটি পেজ সেটাপ করে সেখানে নিয়মিত পিষ্ট করতে হবে এবং ফলোয়ার বাড়াতে হবে। ফ্রি মার্কেটিং করতে হলে আপনার প্রচুর পরিমানে ফ্যান-ফলোয়ার থাকতে হবে।

নিয়মিত বিভিন্ন ধরনের প্রোডাক্ট আপনার পেজে পোস্ট করতে হবে। পোস্ট করার সময় অবশ্যই প্রোডাক্টের ভালো দিক গুলো তুলে ধরতে হবে।বিভিন্ন অফারের মাধ্যমে ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে পারেন এবং বিভিন্ন ধরনের ডিসকাউন্টের সুযোগ দিতে হবে।তাহলে ফ্রি ফেসবুক মার্কেটিংয়ের সুফল লাভ করতে পারবেন।

 ফ্রি মার্কেটিং এর জন্য আপনাকে প্রতিদিন মিনিমাম ২-৩ ঘন্টা সময় দিতে হবে। এবং আপনাকে বিভিন্ন গ্রুপ এ জয়েন থাকতে হবে। বিভিন্ন গ্রুপ এ আপনার পণ্যের পোস্ট করতে হবে শেয়ার করতে হবে তবে প্রথমত আপনি গ্রুপ এ জয়েন হয়ে বিভিন্ন ইনফোরমেটিভ পোস্ট করে পরে আপনার পোস্ট করা শুরু করুন।

বিভিন্ন গ্রুপ এ পোস্ট এবং শেয়ার করার ফলে আপনার প্রোডাকসিত সম্পর্কে বেশি মানুষ  এবং আপনার ফলোয়ার বাড়বে। এছাড়া ফেসবুক ম্যাসেন্জারের মাধ্যমে ফ্রি ফেসবুক মার্কেটিং করতে পারবেন।

ফেসবুক ফ্রি মার্কেটিং এর সুবিধা কি?

আপনি যখন মার্কেটিং এর কাজটা কোনো রকম খরচ ছাড়াই করতে পারবেন সেটাই হবে ফেসবুক ফ্রি মার্কেটিং। যেহেতু ফেসবুক ফ্রি মার্কেটিং এর জন্য আপনার কোনো টাকা খরচ করতে হচ্ছেনা কিন্তু আপনি একটু চেষ্টা করলেই সেখান থেকে কাস্টমার গ্যাজেড করতে পারছেন তাই ছোট খাটো কোনো ব্যবসায়ের জন্য ফ্রি ফেসবুক মার্কেটিং এর যথেষ্ট বলে মনে করি।

ফেসবুক পেইড মার্কেটিং কি এবং কিভাবে করবো?

টাকার বিনিময়ে ফেসবুকে যে বিজ্ঞাপন দেয়া হয় তাকেই ফেসবুক পেইড মার্কেটিং বা ফেসবুক বুস্ট বলা হয়। ফেসবুক পেইড মার্কেটিং করার জন্য ফেসবুক এ কিছু টাকা খরচ করে বিজ্ঞাপন দিতে হবে এবং বিজ্ঞাপন টি বিভিন্ন পণ্যের স্পন্সরড পোস্ট হিসেবে নিউজফিডে  দেখায়। এবং এর ডান পাশে বিভিন্ন পণ্য বা অফারের ছবি দেখাবে।

ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য অবশ্যই আপনার একটি ফেসবুক পেজ থাকতে হবে। কেননা শুধু ফেসবুক প্রোফাইল এর মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দেয়া যায়না।

সেজন্য আপনাকে প্রথমে একটি বিজনেজ পেজ খুলে নিতে হবে তারপর সেই পেজ এ আপনার প্রোডাক্ট বা সেবার বিস্তারিত বিবরন দিয়ে বিজ্ঞাপন প্রচার করতে হবে। পেইড ফেসবুক মার্কেটিং অত্যন্ত ফলপ্রসু মার্কেটিং। যার মাধ্যমে সহজে কাঙ্খিত কাস্টমারের কাছে পৌঁছানো সম্ভব হয়। কারণ আপনি এখানে কার কাছে পণ্য পৌঁছাতে চাচ্ছেন তা নিদৃষ্ট করে দিতে পারবেন। পুরুষ, মহিলা,বয়স এবং স্থান সবকিছু আপনি নিজের ইসিসে মতো টার্গেট অনুযায়ী দিতে পারবেন।

ফেসবুক পেইড মার্কেটিং এ সফল হতে হলে আপনাকে  ফেসবুক অ্যাড ম্যানেজার সম্পর্কে আপনাকে খুব ভালো একটা ধারণা রাখতে হবে। কেননা ফেইসবুক অ্যাড ম্যানেজার থেকেই আপনি আপনার অ্যাড টি কে অনেক বেশি টার্গেটিং করে রান করতে পারবেন তাহলে আপনার ROI ঠিক থাকবে। ফেইসবুক অ্যাড ম্যানেজার, ROI সহ ফেইসবুক বিপণন এর আরো নানা বিষয় জানতে আমাদের ইউটিউব চ্যানেল এ ঘুরে আসতে পারেন।

ফেসবুক  পেইড মার্কেটিং এর সুবিধা কি? 

ফেসবুক পেইড মার্কেটিং এর মাধ্যমে আপনি একদম আপনার কাঙ্খিত কাস্টমারের কাছে পৌঁছাতে পারবেন,যেটা ফেইসবুক ফ্রি মার্কেটিং করে সম্ভব নয়।

ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেশি হওয়া সত্ত্বেও সহজে প্রচার ঘটানো যায়। যেকোনো জায়গা, শহর, দেশ বা লোকাল এরিয়া টার্গেট করে পন্যের বিজ্ঞাপন দেওয়া যায়। নির্ধারিত পন্যের টার্গেট করা মানুষের কাছে প্রোডাক্ট পৌছানো সম্ভব হয়। বিভিন্ন বয়সের মানুষকে টার্গেট করে প্রোডাক্ট মার্কেটিং করা যায়।

Facebook Marketing এর কিছু টিপস:

আজে-বাজে  প্রোফাইল পিকচার দেয়া যাবে না। এমন কোন প্রোফাইল পিকচার দিতে হবে যেটা দেখলে সরাসরি আপনার কোম্পানিকে বুঝাবে। কখনই অতিরিক্ত কোনো পোস্ট এবং একই পোস্ট বার বার করবেন না , এতে পুরো ব্যাপারটা একঘেয়ে হয়ে যায়।

শুধু আপনার নতুন নতুন পণ্যের ছবি বা ভিডিও সুন্দর ভাবে টাইটেল দিয়ে পণ্যের ম্যান সম্পর্কে গুণগান গেয়ে সুন্দর করে পোস্ট করে ওগুলো শেয়ার করে দিবেন। এবং আপনি যদি নিজের ফেসবুক পৃষ্ঠার উন্নতি করতে চান তবে আপনার এটিতে ট্র্যাফিক আনার উপায় খুঁজে বের করতে হবে।

ফেসবুক বিপণন করে কিভাবে আয় করবেন

আমরা ফেসবুককে শুধুমাত্র সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম, টাইমপাস এবং বিনোদনের স্থান হিসেবে ধরে নেই। কিন্তু আপনি কি জানেন যে,বিনোদন বা সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুক কাজে লাগিয়ে মানুষ এখন অনলাইন থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করছে।

এমনকি ফেসবুক পেজ ও গ্রুপ তৈরি করে ফেসবুকের বিজ্ঞাপন ব্যবহার করে ফেসবুক থেকে আয় করছে। তাছাড়া ফেসবুক পেজে ভিডিও আপলোড করে ইউটিউবের মত ফেসবুক থেকে টাকা আয় করা সমম্ভব হচ্ছে।

তবে ফেসবুক থেকে আয় সম্পর্কে আপনার কোনো ধারণা না থাকলে ও নিম্নলিখিত পোস্ট টি মনোযোগ দিয়ে পড়লে আপনি ফেসবুক থেকে কিভাবে যায় করা যায় আপনি এই বেপারে সম্পূর্ণ ধারণা পেয়ে যাবেন ইনশাআল্লাহ।

ফেসবুক বেশ কয়েকটি পন্থায়ই আয় করা যায় তবে আমি এর মধ্যে মূল কয়েকটি বিষয় তুলে ধরেছি :-

ফেসবুক একাউন্ট খুলে আয়:-

 আপানার যে নরমাল ফেসবুক একাউন্ট আছে, যেটি আপনি নিয়মিত ব্যবহার করুন, সেই একাউন্টের মাধ্যমে আপনি সরাসরি ফেসবুক থেকে আয় করতে পারবেন না। কারণ ফেসবুক একটি ইউজার একাউন্ট থেকে সরাসরি টাকা ইনকাম করার কোন উপায় রাখেনি।

 তবে আপনার কোন ব্যক্তিগত ব্লগ থাকলে সেই ব্লগের পোস্টগুলো ফেসবুক একাউন্টে শেয়ার করে ফেসবুক হতে আপনার ব্লগের ভিজিটর বৃদ্ধি করে ব্লগের আয় বাড়িয়ে নিতে পারবেন। ফেসবুক থেকে আয় করার জন্য অবশ্যই আপনার একটি ফেসবুক পেজ বা ফেসবুক ফ্যান পেজ থাকতে হবে।

ফেসবুক পেজ থেকে আয় :-

আপনার ফেসবুক পেজে যখন অনেক পরিমানে ফলোয়ার থাকবে তখন থেকে আপনি বিভিন্ন উপায়ে ফেসবুক থেকে টাকা আয় করা শুরু করতে পারবেন। ব্যবসা বা প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে ফেসবুক পেজ খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

বিশেষকরে আপনার কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থাকলে সেই প্রতিষ্ঠানের নামে ফেসবুক পেজ তৈরি করে খুব সহজে প্রতিষ্ঠানের প্রচারনা করতে পারেন। যখন আপনার প্রতিষ্ঠানের ফেসবুক পেজে প্রচুর পরিমানে ফলোয়ার থাকবে তখন আপনি চাইলে সহজে আপনার প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন পন্য বা প্রোডাক্ট ফেসবুক পেজে আপলোড করে পন্যের প্রচার করে অনলাইনের মাধ্যমে সহজে ক্রেতার নিকট পন্য বিক্রি করতে পারবেন।

ফেসবুক পেজ এ ভিডিও আপলোড দিয়ে আয়:-

ফেসবুক এ ভিডিও আপলোড দিয়ে টাকা আয়ের কথা এখন আর নতুন করে কাউকে জানানো লাগবে বলে আমার মনে হয়না । কারণ ফেসবুক পেজ এ ভিডিও আপলোড দেয়াটা এখন খুব জনপ্রিয় হয়ে গেছে। Monetization এর কিছু নিয়ম বা যোগ্যতা রয়েছে, যেগুলো ফিলআপ হলে ফেসবুক পেজে ভিডিও আপলোড করে ফেসবুক থেকে টাকা আয় করা যায়। 

ফ্রীলান্সিং মার্কেটপ্লেস থেকে আয় :-

ফ্রীলান্সিং মার্কেটপ্লেস এ ফেসবুক বিপণন এর বিপুল পরিমানে চাহিদা রয়েছে। যেকোনো মার্কেটপ্লেসে আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং এর ফেসবুক মার্কেটিং সেক্টর এ কাজ করে প্রচুর পরিমানে আয় করতে পারবেন।

এ ছাড়া ফেসবুক পেজ বিক্রি করে আয়, ফেসবুক লাইক শেয়ার করে আয়, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে ফেসবুক থেকে আয়, ফেসবুক গ্রুপ থেকে টাকা আয়, ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দিয়ে আয় ইত্যাদি।

ফেসবুক মার্কেটিং কিভাবে শিখবেন?

ফেসবুক মার্কেটিং শিখতে চাইলে আপনি ইউটিউব থেকে ভিডিও দেখে শিখতে পারেন বা গুগল এ সার্চ করে ও বিভিন্ন আর্টিকেল পরে বা কোনো ইনস্টিটিউট থেকে শিখতে পারেন।

তবে আপনি ফ্রি কোর্স আর প্রিমিয়াম কোর্স যেটাই করুন না কেন নিজে নিজে একটু যাচাই করে তারপরে কোর্স এ ইনরোল করবেন কারণ, অনলাইন এ এখন অনেকেই ফেসবুক বিপণন বা ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স করাচ্ছেন। কিন্তু অনেকেই অনেক প্রতারিত হয়েছে বা প্রতাড়িত না হলে ও সম্পূর্ণ সাপোর্ট পাচ্ছেন না।

তাই আপনাকে উপদেশ বা পরামর্শ যেভাবেই নিন আপনি, আপনাকে বলবো আপনি কোনো প্রতারকের হাতে পড়বেন না কোনো কোর্স এ জয়েন হওয়ার আগে অবশ্যই ভালোভাবে জেনে নিবেন।

তবে আপনি চাইলে আমাদের থেকেও ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্সটি করতে পারেন আমাদের Digital Marketing Mastermind নামে একটি কোর্স  রয়েছে। এখানে শুধু ফেইসবুক মার্কেটিং’ই নয় এরকম আরো ২৫ টি টপিক এর ওপর আমাদের Digital Marketing Mastermind কোর্সটি।

আপনি Digital Marketing Mastermind কোর্সটি করতে চাইলে ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইটে। অথবা গুগলে সার্চ করুন “Digital Marketing Mastermind” লিখে। সেখান থেকে আপনি আমাদের কোর্স সম্পর্কে জানতে পারবেন এবং সরাসরি কোর্সটিতে মেম্বারশিপ নিতে পারবেন।

উপসংহারঃ

পোস্ট টি সম্পূর্ণ পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আশা করছি আপনি ফেসবুক বিপণন সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পেরেছেন এবং অনেক কিছু শিখতে পেরেছেন।

Facebook Marketing  সম্পর্কে আপনার আরো কিছু জানার থাকলে কমেন্ট করে জানান আমি তার সমাধান দেয়ার চেষ্টা করবো ইনশাআল্লাহ। আর আপনার মূল্যবান মতামত আমাদের ভালো কিছু লেখার অনুপ্রেরণা দেয় সুতরাং আপনার মূল্যবান মতামত জানাতে ভুলবেন না। ধন্যবাদ!!!

Summary
ফেসবুক মার্কেটিং কি? কেন কিভাবে- বিস্তারিত
Article Name
ফেসবুক মার্কেটিং কি? কেন কিভাবে- বিস্তারিত
Description
ফেসবুক মার্কেটিং হল বর্তমান সময়ের ডিজিটাল মার্কেটিং এর সবচেয়ে গরুত্বপূর্ণ একটি পার্ট, এবং বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি মাধ্যম। কারণ তথ্য-প্রযুক্তির এই যুগে ফেসবুক হচ্ছে অধিক জনপ্রিয় একটি যোগাযোগ মাধ্যম।
Author

This Post Has 4 Comments

  1. Md. Rafiqul Islam

    Thank you so much for giving a lot of information about Facebook Marketing.

Leave a Reply

two × one =

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.